Mishawr Rawhoshyo (2013): Movie Review, Trailer; Srijit Mukherji does the magic again

2
286
Mishawr Rawhoshyo

Mishawr Rawhoshyo (2013)

প্রথমেই জানিয়ে রাখি যে মিশর রহস্য কোন কঠিন সিনেমা নয়। মূল গল্পের মতনই সহজ তথা মুচমুচে করে ছবিটির চিত্ররূপ দিয়েছেন পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়। ঠিক যেন এক ঠোঙ্গা সুস্বাদু ঝালমুড়ি।  এই ঝালমুড়িতে পর্যাপ্ত পরিমান তেল, নুন, লঙ্কা, চানাচুর এবং সর্বোপরি মুড়ির এক অসামান্য সমন্বয় ঘটেছে সৃজিত, বুম্বাদা এবং Venkatesh Films-এর এই তৃতীয় ছবিতে। পর পর তিনটি কঠিন বিষয় নিয়ে ছবি করার পরে সৃজিত এবার বেছে নিলেন এমন এক  কিশোর উপন্যাস, যেটির হাত ধরে বাংলা ছবি আরো একবার ফিরে পেলো ‘সবুজ দ্বীপের রাজা’- র সেই রাজা রায়চৌধুরী অর্থাৎ আমাদের সবার প্রিয় কাকাবাবুকে। এবার অবশ্য শমিত ভঞ্জ নন, কাকাবাবু রূপে আবির্ভূত হয়েছেন আমাদের আরেকজন অত্তন্ত প্রিয় অভিনেতা প্রসেঞ্জিত চট্টোপাধ্যায়। এই কাকাবাবু ২০১৩-র চরিত্র, তাই স্বাভাবিক ভাবেই তার চরিত্রায়নে কিছু বদল ঘটিয়েছেন পরিচালক সৃজিত মুখপাধ্যায়। ২০১৩-র এই কাকাবাবুর বগলে আগের মত দুটি ক্রাচ নেই, বদলে আছে একটি আধুনিক হাই-টেক হ্যান্ড ক্রাচ। নিজের দেশ বিদেশের বন্ধুদের সঙ্গে সর্বক্ষণ twitter-র মাধ্যমে এ যোগাযোগ রাখতে এই 2013-র কাকাবাবুর সঙ্গী iphone এবং অত্যাধুনিক i-tab। বর্তমান সময়ের জন্যে প্রয়োজনীয় আধুনিকতার কথা মাথায় রেখে অবশ্যম্ভাবী এই রদবদলগুলো বাদ দিলে বাকিটা কিন্তু একই রেখেছেন পরিচালক। কাকাবাবু সেই আদি ও অকৃত্রিম জেদ, সাহসিকতা এবং প্রবল জিগীষা কে সৃজিত নিজের লেখা চিত্রনাট্যের প্রতিটি বাঁকে মেলে ধরেছেন। সন্তু চরিত্রটিকেও সৃজিত ২০১৩-র এক আধুনিক তরুন রূপে গড়ে তুলেছেন এবং সময়ের দাবি মেটাতে মূল গল্পের ‘রিনি’ চরিত্রটি এখানে সন্তুর গার্লফ্রেন্ড।

যেহেতু এই ছবির নামেই রহস্য শব্দটি দেখতে পাওয়া যাচ্ছে তাই ছবি মুক্তির প্রথম দিনেই গল্পটিকে সবিস্তারে বলে দেবনা। যতটা বলা যায় ততটাই লিখছি। মিশরীয় ব্যবসায়ী আল মামুন (Rajit Kapoor) কলকাতায় এসে কাকাবাবু / রাজা রায়চৌধুরী (Prosenjit Chatterjee) -র সঙ্গে সাক্ষাত করেন, তার আর্জি কাকাবাবু যেন দিল্লী গিয়ে তার কাকা তথা ধর্মগুরু মুফতি মহম্মাদ (Barun Chanda) এর সঙ্গে দেখা করেন । মুফতি সাহেব মৃত্যু শয্যায় এবং তার কাছে এমন এক নকশা আছে, যার সাংকেতিক বানী হয়তো বা পৌঁছে দিতে পারে এমন এক গুপ্তধনের ঠিকানায়, যা মুফতি সাহেব খুঁজে পেয়েছিলেন বিদেশি পর্যটক দের মিশর ভ্রমন করাবার সময় । অতঃপর কাকাবাবু দিল্লী গিয়ে দেখা করেন মুফতি মহম্মদ -এর সঙ্গে । তারপর নিজের ভাইপো সন্তু কে সঙ্গে নিয়ে কাকাবাবু পাড়ি জমান মিশরের পথে। মিশরে পৌঁছে কাকাবাবু ও সন্তু অপহৃত হয়ে যান এবং  এই অপহরনের ঘটনা মিশর রহস্যকে ঘনিভুত করে তোলে। অপহৃত কাকাবাবু জানতে পারেন যে আরেকজন মানুষও এই গুপ্তধনের সন্ধানে সক্রিয়, যার নাম হনি আলকাদি। হানি আলকাদি এক সময় মুফতি সাহবের ছাত্র ছিল এবং আজ সে আইনের চোখে অপরাধী, পলাতক এক জঙ্গি নেতা । হানি-কে প্রথমে বুঝে উঠতে না পারলেও পরে কাকাবাবু বুঝতে পারেন যে আসলে যে জঙ্গি নয়, সে একজন বিপ্লবী । হানির লক্ষ্য হল মিশরের সাধারন গরিব মানুষের পাশে দাঁড়ানো । সেই কাজের জন্যে প্রয়োজন অনেক অর্থের, যা তাকে দিতে পারে এই মুফতি মহম্মদের গুপ্তধন আর সেই জন্যেই সে কাকাবাবু কে অপহরন করেছে যাতে কাকাবাবু তাকে মুফতি সাহবের নকশার পাঠোদ্ধার করে গুপ্তধন লাভে সাহায্য করেন । হানি আলকাদির স্বরূপ জানতে পারার পরে তার এবং কাকাবাবুর মধ্যে এক মানবিকতার সম্পর্ক গড়ে ওঠে, যা গল্পের শেষে পরিনত হয় বন্ধুত্বে। কাকাবাবু কি গুপ্তধনের সন্ধান পান ? গুপ্তধন শেষ পর্যন্ত কাকাবাবু কার হাতে তুলে দেন? আল মামুন, যিনি কাকাবাবুর সঙ্গে প্রথম যোগাযোগ করেন নাকি হানি আলকাদি যিনি এই গুপ্তধনকে তার সংগঠনের স্বার্থে ব্যবহার করতে চান? মিশরে কাকাবাবু ও সন্তুর জন্যে আর কি কি চমক অপেক্ষা করে ছিল? এইসব প্রশ্নের উত্তর পেতে হলে দর্শকদের সপরিবারে সিনেমা হলে গিয়ে দেখতে হবে সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের চতুর্থ ছবি “মিশর রহস্য”।

হানি আলকাদির ভূমিকায় নিজের অভিনয় কেরিয়ারের (এখনো পর্যন্ত) সর্বসেরা অভিনয়টি অনায়াসে করে ফেললেন ইন্দ্রনীল সেনগুপ্ত (Indraneil Sengupta)। এমন তার স্ক্রিন প্রেজেন্স, এমনই তার চোখের অভিব্যক্তি তথা সংলাপ বলার স্টাইল কিম্বা ছদ্মবেশ ধারনের ক্ষমতা যে  হানি আলকাদি চরিত্রটির প্রতি মমতঃ বোধ এবং শ্রদ্ধা দুই আদায় করে নিয়েছেন। যে ছবিতে রাজা রায়চৌধুরী চরিত্রে স্বয়ং বাংলা ছবির বর্তমান রাজা প্রসেনজিত চট্টোপাধ্যায় অভিনয় করেছেন, সেখানেই হানি আলকাদির ভূমিকায় ইন্দ্রনীলের এই অবিস্মরণীয় অভিনয় কীর্তি নিঃসন্দেহে তারিফযোগ্য। ‘আল মামুনের’ ভূমিকায় Bollywood actor  রজিত কাপুর (Rajit Kapoor)-কে বেশ মানিয়ে গেছে এবং রজিতের ভাঙা ভাঙা বাংলা আল মামুন চরিত্রটিকে বেশ বিশ্বাসযোগ্য করে তুলেছে। ছবির পর্দায় ‘আল মামুন’-ই বোধয় রজিতের অভিনীত প্রথম পুরদস্তুর খলনায়ক চরিত্র। মিশরীয় জাদুঘরের কিউরেটর ‘মানটো’-র  ছোট চরিত্রে অভিনয় করে দর্শকদের চমকে দিয়েছেন ‘মেঘে ঢাকা তারা’-র নির্দেশক কমলেস্বর মুখোপাধ্যায়।  সিদ্ধার্থ ও স্নিগ্ধার চরিত্রে সুজন/নীল মুখোপাধ্যায় (Sujan /Neel Mukherjee) এবং স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায় (Swastika Mukherjee) একেবারে মিশে গেছেন। CBI অফিসর নরেন্দ্র বর্মা-র ভূমিকায় রাজেশ শর্মা (Rajesh Sharma) ব্যতিত অন্য কাউকে এতটা ভালো লাগতো বলে আমার অন্তত মনে হয়না।

দেবদান ভৌমিক/ Aryan যথাসাধ্য চেষ্টা করেছেন সন্তু হয়ে উঠতে কিন্তু কেমন যেন খাপছাড়া লেগেছে তার অভিনয়। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের ‘সন্তু’ একজন স্মার্ট ছেলে হয়েও খুব সরল কিন্তু সৃজিতের সন্তু কেমন যেন রোমিও টাইপের একজন টিন-এজার। আমার ‘আরিয়ান’-কে খুব খারাপ না লাগলেও ‘কাকাবাবু-সন্তু’-র  একজন বলে মেনে নিতে বেশ কিছুক্ষণ সময় লেগেছে। ইনফ্যাক্ট, এখনো মেনে নিতে পারছি না। বরং সন্তুর বিশেষ বান্ধবী ‘রিনি’-র ভূমিকায় নবাগতা অভিনেত্রী ত্রিধা চৌধুরী-কে ছবির পর্দায় দেখতে লেগেছে এক-কথায় অপরূপা। ইংরাজিতে যাকে বলে “পিকচার পারফেক্ট ফেস”, Tridha Choudhury বাংলা ছবির পর্দায় সেই সৌন্দর্যের স্থানটা হয়ত অনায়াসে নিজের দখলে আনতে পারবেন। মিশর রহস্যে ত্রিধা নিজের অভিনয় দেখাবার খুব একটা সময় কিম্বা সুযোগ পাননি। তবে যেটুকু পেয়েছেন, তাতেই নিজের স্বতঃস্ফূর্ততার দ্বারা এটা বুঝিয়ে দিয়েছেন যে তিনি বাংলা ছবির দুনিয়ায় থাকতে এসেছেন। তবে ত্রিধা-কে নিজের বাংলা উচ্চারণ নিয়ে আরো বেশ খানিকটা অনুশীলন করতে হবে বলে আমার মনে হয়েছে কারন তার ইংরাজি ভাষার উপর যে পরিমান দখল আছে, বাংলা ভাষার উপর ঠিক ততটা অনায়াস দখল নেই। ত্রিধার জানা উচিৎ যে ইন্দ্রনীল সেনগুপ্ত-ও নিজের প্রথম বাংলা ছবিতে নিজের সংলাপ নিজে বলতে পারেনি। অতনু ঘোষের পরিচালনায় “অংশুমানের ছবি”-তে ইন্দ্রনীলের কণ্ঠদান করেছিলেন আজকের আরেকজন জনপ্রিয় অভিনেতা আবির চট্টোপাধ্যায়। আজ কিন্তু ইন্দ্রনীল নিজের সংলাপ নিজেই বলে থাকেন। মিশর রহস্যে- তো তিনি বুম্বাদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে রবীন্দ্র-আবৃতি করে ফেলেছেন। সনু নিগমের (Sonu Nigam) কণ্ঠে “হানি আলকাদি”-র গান শুনতে শুনতে সংবেদনশীল দর্শকদের চোখে জল চলে আসে।

Mishawr Rawhoshyo

প্রসেনজিত চট্টোপাধ্যায় ছবির পর্দায় নিজেকে আর কত ভাঙবেন? যতই সময় এগোচ্ছে এবং বয়স বাড়ছে, ততই যেন প্রতিভার উচ্চতম শৃঙ্গের লক্ষ্যে জোর কদমে এগিয়ে চলেছেন বাংলা ছবির একছত্র সম্রাট। যদিও আমার বিশ্বাস যে উচ্চতম শিখরে আরোহণ করাটা এখনো বাকি আছে বুম্বাদার। সৃজিতের পরের ছবি “জাতিস্মর” অথবা গৌরব পাণ্ডের “হনুমান ডট কম” কি এনে দেবে কি সেই স্বীকৃতি? এই প্রশ্নের উত্তর দেবে সময়। বুম্বাদার করা চিত্ত  যেথা ভয়শূন্য / উচ্চ যেথা শির  কবিতার আবৃতি-টি শুনতে বড্ড ভালো লাগে। কাকাবাবু চরিত্রে অভিনয় করতে প্রসেনজিত চট্টোপাধ্যায়-কে খুব বেশি যে পরিশ্রম করতে হয়েছে বলে আমার মনে হয়নি কিন্তু কাকাবাবু রূপে বুম্বাদাকে মানিয়েছে বেশ। রুপম ইসলামের (Rupam Islam) কণ্ঠে “এক যে ছিল রাজা” (বর্তমানে যে গান “কাকাবাবুর গান” হিসাবে প্রচলিত) শুনতে শুনতে সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের ‘কাকাবাবু’-কে যেন মনের চোখে দেখা পাই আমরা। এই দুটি গানের জন্যে লেখক শ্রীজাত এবং সংগীত পরিচালক Indraadip Dasgupta -কে ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানাই।

সমিক হালদারের ক্যমেরা + বোধাদিত্ত্য বন্দ্যোপাধ্যায়ের সম্পাদনা + ইন্দ্রদীপ দাশপ্তের সঙ্গীত + প্রসেনজিত চট্টোপাধ্যায় এবং ইন্দ্রনীল সেনগুপ্তের অনবদ্য অভিনয় + Srijit Mukherji-র পরিচালনা = মিশর রহস্য -কে এক জমজমাট পারিবারিক বিনোদনমূলক ছবি বলা যায়। সবদিক মাথায় রেখে সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের চতুর্থ ছবি মিশর রহস্য-কে আমি 7/10 নম্বর দিলাম।


Mishawr Rawhoshyo Theatrical Trailer | Prosenjit Chatterjee | Srijit Mukherji | Indraneil Sengupta (You Tube)

SanjibSanjib Banerji takes a keen interest in both Old and Contemporary/modern Bengali literature and cinema and have written several short stories for Bengali Little magazines. He also runs a little magazine in Bangla, named – Haat Nispish, which has completed its 6th consecutive year in the last Kolkata International Book Fair. Being the eldest grandson of Late Sukumar Bandopadhaya, who was the owner of HNC Productions and an eminent film producer cum distributor of his time (made platinum blockbusters with Uttam Kumar, like “Prithibi Aamarey Chaaye”, “Indrani” and several others), Sanjib always nurtured an inherent aspiration of making it big and worthy in the reel arena. He has already written few screenplays for ETV BANGLA.
Sanjib can be reached at sanjib@sholoanabangaliana.com

 

 

Enhanced by Zemanta

2 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your name here
Please enter your comment!