Tag: bangla-literature

Bangladesh’s Famous Publication House Dhaka Pathak Samabesh Now in Kolkata

Poet-Sankha-Ghosh

The famous publication house of Dhaka Pathak Samabesh arranged a Kolkata centre in Bharti Book Stall located at 6B Ramanath Mazumdar Street, College Street. Poet Sankha Ghosh, Dr. Abul Ahosan Chowdhury, dignitaries of Bangladesh Deputy High Commission and others graced the event.

There is a steady demand of books in India written by Bangladeshi authors. This has been proved by the sale of books in the Kolkata Book Fair. The sale of books amounted to Rs 1 crore. This happened without any promotions. Hence the initiative has been taken up by Dhaka Pathak Samabesh who will now be providing books to the Indian readers.

Dhaka-pathak-samabesh

Books on history, politics, Muktijuddho, books on regional songs, literature, experimental books, reference books on history of Bengali literature will be available at this book store.

After the order of the book has been placed, the book will be delivered within five to seven days of placing the order. The book can either be collected from the shop or can be delivered directly to the home of the readers.

Priyanka Dutta

Connect with us on Facebook at: https://www.facebook.com/sholoanabangaliana?ref=hl

Our You Tube Channel: https://www.youtube.com/channel/UC2nKhJo7Qd_riZIKxRO_RoA

Our Twitter Handle: @Sholoana1

Google+ ID: +Sholoana

Collection of Stories ‘Chena Ochena Kichhu Choritro’ by Annwesh Mukherjee

Chena-Ochena-Kichhu-Choritro

Chena Ochena Kichhu Choritro Short description :

The book contains three stories, spanning across generations and time. The salient feature in all the stories is the characterization. The author tries to delve into the deep philosophical and human elements of life which are never so easy to fathom, yet most intriguing to study. A blend of personal assessment and examination of rudimentary aspects of society is what the book offers to its readers. A short snippet on each story is presented below:

1) Taap O Onutaap – This is a simple story on the concept of friendship, starting from one generation and ending in another. This is a story filled with emotion that can only be felt in the context of friendship.

2) Atmabhimaan – This is a story of today, a generation riddled with confusion. A short face-to-face with reality strikes the mind of the protagonist as he tries his best to understand the pangs of the society.

3) Sebabrati – This is a narration of the life of a woman who finds herself in an amazing whirlwind of life. To her, the life is a straight line but is it really meant to remain straight throughout?

Reviews :

Review 1 –

“The stories present you an array of mesmerizing characters which can leave you with a sense of Dejavu. At certain  points you will find yourself empathizing with them and they can leave you with a sweet melancholy strain that can be enjoyed in the company of silence. They question your individuality, your perception of happiness, your realization of success and celebrate innocence.  The narrator has managed to peep through the eyes of time and the canvas covers how the society has translated in the eyes of time.”

Souvik (Friend and well-wisher)

Review 2 –

“Annwesh starts his literary journey with three well crafted novellas. They are different in a sense of time, setting and characters but at the same time sewn together in a subtle melancholy string of humanity. A deep exploration of human emotions, life and reality manifests itself through the different characters Annwesh depicts. Sometimes they are ordinary, yet the next moment they showcase that inner eternal life which make each one of us special. A thought evoking book, it is a fascinating portrait of life.”

Shubhabrata (Friend and well-wisher)

The Author Annwesh Mukherjee

Anwesh Mukherjee

Mr. Annwesh Mukherjee who is a software engineer by profession and is a Swedish National is also a story-writer, a poet and an essayist, who thrives on human values and human emotions, and who embodies in his works, elements from past and present generations of human society. A formidable grip on characters allows him to document complexity and openness with equal ease. The poetic charm gets mixed with a narrative flavor which creates a unique description of incidents in Annwesh’s works. A mind molded in the realm of simplicity of yester-years yearning to reach out to the audacious vivacity of the new age life is a simple depiction of Mr. Mukherjee as an author and a smooth and lucid blend of lyrical words with some commonplace expressions best describes the language the Annwesh the author cherishes the most.

Sarat Chandra Chattopadhay Novel Choritroheen; A Fresh Perspective on Sarat Chandra’s Liberated Leading Ladies

Choritroheen (the CharacteSarat-Chandra-Chattopadhyay-Novelrless) the Sarat Chandra Chattopadhay Novel is a saga of love.

It is primarily the story of Sotish and Sabitri who are in love but succumb to the social barrier of caste and creed. Along with them we find Upendra, Surabala, Kironmoyee and Sarojini trying to make meaning out of life and love.

Though in the novel we get to see the socio-economic panorama of Chattopadhay’s time, and the novelist raises pertinent questions against the ills of the then society, yet I find it to predominantly be a saga of love and love of particularly four women, namely Sabitri, Kironmoyee, Surabala and Sarojini. An interesting image that emerges out of the plot, that didn’t escape a first time reader of the novel, as I was, is that these four women can be paired into two sets of alter egos. Sabitri and Kironmoyee. Surabal and Sarojini. We can also call these sets the coming together of two polarities.

Let us first look at Sabitri and Kironmoyee. Sabitri, born in a Hindu Brahmin family, and thus of a higher caste, widowed at nine, is forced to take up the role of a low class household maid for a living. Kironmoyee too, a high caste woman, is married of as a child, and becomes a widow when Haran dies. Both are educated. Both are self-willed and full of self-respect. But the similarities end here. While Sabitri remains uncorrupted by the lustful men and their tempting offers, Kironmoyee’s ineer world falls prey to the luring of her outer world. Unloved by her husband and denied of all conjugal bliss, this lonely woman leaves her ailing husband in his sick bed to enjoy the bitter-sweet company of his family physician, Dr. Ananta. Sabitri falls in love with Sotish, a high caste staunch Brahmin, who equally loves her but she, throughout the novel, keeps herself away from him for his well-being. She denies herself the love of Sotish, pretends to love another man, Bipin babu, and stays away from Sotish, only so that Sotish does not ruin his life and his social well-being by associating himself with a base woman like herself. On the other hand, Kironmoyee, in love with Upendra, and rejected by him, seeks revenge for being spurned in love, pretends to love Dibakar, and elopes with him, only so that she can hurt Upendra and tarnish his social iamge. While Sabitri is an idol of pure, selfless and unconditional love, Kironmoyee is the image of vengeance and impure passion. Thus they become the alter egos to each other.

Coming to Surabala and Sarojini. Unlike the other set, there is hardly any similarity between the two. Surabala, wife of Upendra, is a devout and religious woman, and a dedicated lover to her husband. She is uneducated, unlike Sarojini who is convent educated. Surabala is deeply rooted in her own religion, voraciously reads religious texts like the Mahabharata and believes every word written in them. Sarojini, on the other hand, is brought up in a Western culture, wears Western clothes and mixes with like-minded men. She is the woman who is uprooted from her roots, her religion and who adopts a culture and lifestyle foreign to her soil. She debunks Hindu religion, mocks religious texts and questions the usual social norms of a staunch Hindu society. She even laughs at Surabala’s blind faith in her religious texts.

But interestingly, these four women, strikingly opposite to one another, are brought together by Sarat Chandra, in the way they respond and finally submit to love. Surabala loves only one man throughout her life, that is her husband Upendra. She even dies in his arms. Sarojini too, though her alter ego, when falls in love, she loves only one man, and that is Sotish. Even when she is mixing with men like Shashanka, in her heart she keeps loving Sotish. While Surabala is an epitome of marital love, Sarojini’s fate too culminates in her betrothal to Sotish.

On the other hand, Kironmoyee, after all her attempts to hurt Upendra and avenge his rejection of herself, comes a full circle when she returns to him in his deathbed and falls at his feet in tears. Sabitri too remains unflinchingly devoted to Sotish, and her unconditional selfless love for him ultimately makes her accept his marriage to Sarojini and go away from him for his betterment.

All these four women, different from one another in their lifestyle and ideologies, divided by their strikingly opposite walks and talks, finally emerge as mirror images of one another in the way they love their men and are devoted to them.

But there is one point of contention. Often it is said that Sarat Chandra portrayed women as much ahead of time in their belief systems and lifestyle. It is believed that he was a strong supporter of women’s liberation.  True in a way. He portrays Sabitri as a self-willed woman, full of self respect and pride, working for a living and loving a man after her widowhood, a phenomenon unthinkable by the widows of Chattopadhay’s time. Another widow, Kironmoyee, is an educated woman, vociferously questions the social norms and religious institutions, denounces the idea of God and deconstructs the notion of morality and sexuality. She, as a married woman, has the guts to love another man, Upendra, and as a widow, has the courage to elope with another man, Dibakar, much junior to herself. She is a woman much ahead of her own time. Sarojini too is portrayed as someone much out of social conformity and ahead of her time in her thoughts and lifestyle. She rebuts Sotish’s ideas of religion and society, submerges herself in a foreign, and thus a tabooed culture, to the point that her mother has to worry about who will marry her.

It is true that Chattopadhay initially sketches these women as modern and liberated. But one wonders where this leads to. At the end Sabitri can’t break the taboos of the society and embrace Sotish. She shirks away from him and his passionate love for her, worrying about the social repercussions of Sotish’s marrying a low caste woman like herself. Therefore, at the end, dear readers, isn’t she giving into the social barriers of caste creed and taboos? Kironmoyee too, who once questioned the idea of God and institutionalized religions, the basis of morality and propriety, is seen, at the end, to go for ‘Ganga-snan’ every day to wash away her sins in the holy river, and goes to offer prayers at Kalighat for Upendra’s recovery. Love makes her lose her sanity and run after institutional religious leaders asking them if God exists and if he will listen to her prayers.  Sarojini, the social outcast and rebel, in love, dons a traditional sari and cooks for Sotish. She, who once scorned Sotish’s society and his orthodox social and religious ideas, gives into him in love. Surabala remains from beginning to end an ideal replica of social conformity, religious fervor and blind faith in socio-cultural institutions.

So, at the end of the novel, one may tend to become bewildered by the fates of Chattopadhay’s so-called liberated leading ladies. Individualistic and enlightened in the beginning, they all fall into line in love. While one expects liberation and socio-cultural salvation of these woman, Chattopadhay sadly brings their redemption through their giving into what they first questioned. One wonders why Chattopadhay didn’t uplift his women in their journey and destiny of love but makes them literally ‘fall’ in love.

Author:

Nivedita-DeyMs. Nivedita Dey is a Post Graduate in English from Stella Maris College, Chennai and has been working in the films and television industry since 2006 as a story and script writer and creative consultant. Nivedita has written for TV programs for channels like Star Jalsha, Life OK, Star Plus, Channel 8 etc. Nivedita has spent quite a few years in Mumbai working in the entertainment Industry there and is currently based in Kolkata and is working as a writer and creative consultant for Kolkata’s leading Production House Shree Venkatesh Films.

Nivedita has keen interest in literature, cinema, social and political issues and enjoys expressing her views by way of guest blogs and articles in popular columns and web portals.

Shakespeare Play Macbeth Translated in Bengali by Basu Acharya; In Continuation…..

Shakespeare play translation

Which smoked with bloody execution,

Like valour’s minion carved out his passage…

Till he unseam’d him from the nave to the chaps,

And fix’d his head upon our battlements. (1.2.15-20)

 

These lines from the play Macbeth am sure are not new to anyone who has read Shakespeare’s immortal dramas. While we may have read and enjoyed Shakespeare in different forms and languages, it is now time that we Bengalis get to read these classics in our own mother tongue.  (1st Part of the Play)

In Continuation ……

Macbeth translation

দৃশ্য–৩

 

[জলার ধারের পোড়ো জমি। বজ্র-বিদ্যুৎ। তিন ডাইনির প্রবেশ।]

 

প্রথম:                কোথায় ছিলি, বহিন আমার?

 

দ্বিতীয়:              করতে ছিলুম শূকর শিকার।

 

তৃতীয়:              ও বোন, তুই কোথায় ছিলি?

 

প্রথম:                ঐ তো হোথায়, নিরিবিলি।

সেথায় বসে মাঝির মাগি

কোঁচরে নিয়ে বাদাম ভাজা

খাচ্ছিল বেশ কচমচিয়ে, কচমচিয়ে, কচমচিয়ে…

আমি বললুম, “দে না দুখান। চিবিয়ে দেখি কেমন মজা!”

রান-খাগি ঐ ডবকা মাগি খেঁউড় করে বললে রেগে—

“ডাইনি বুড়ি বারোভাতারি, বাজে না বকে যা তুই ভেগে”!

ভাতারটা ওর আলেপো গেছে।

ছুটবো আমি পাছে পাছে।

ল্যাজকাটা এক ইঁদুর হয়ে

যাব নিয়ে শমন বোয়ে।

নোনা জ্বলে নাকানি চোবানি খাওয়াবো, খাওয়াবো, খাওয়াবো।

 

দ্বিতীয়:              পালে তোর আমি দেব হাওয়া।

 

প্রথম:                তোর তো দেখি বেজায় দয়া!

 

তৃতীয়:              আমিও দেবো হওয়ার দমক।

 

প্রথম:                আমারও আছে সকল চমক!

লুকক হাজার বন্দরে, নদী-নালায় কন্দরে।

মাঝিমাল্লার কেতাব ঢুঁড়ে খুঁজুক নতুন আড্ডা।

বুঝিয়ে দেবো কেমন গেঁড়ো, কি ভয়ানক গাড্ডা!

পাটের কাঠি বানিয়ে দেবো রক্ত-মজ্জা চুষে,

চোখের পাতায় ঘুম রবে না, থাকবে জেগে বসে।

হালত দেখে ঘেঁষবে না কেও, আসবে না কেও কাছে।

পোড়ারমুখীর ভাগ্যে জেনো আরও দুঃখ আছে।

নিঁদ হারানো সাতটি রাতি নয় নয়কে নয়,

তিল তিল কোরে জাদুর শরীর হবেই হবে ক্ষয়।

যদি ব্যাটার জাহাজখানা নাও ডোবাতে পাড়ি,

সাগর ঝরে উথাল-পাথাল, ঘোল খাওয়াবো ভারি।

এই দেখ, কি এনেছি।

 

দ্বিতীয়:              কি এনেছিস, দেখা দেখা।

 

প্রথম:                এক জাহাজির বুঢঢা-আঙ্গুল এটা।

ফেরার পথে জাহাজ ডুবে টেঁসে গেছে ব্যাটা।

 

[দামামা বেজে ওঠে]

Shakespeare in Bengali

 

তৃতীয়:              বাজছে দামামা

‘নিগঘাত’ আসছে ম্যাকবেথ!

 

সমবেত:             তিন বোন মিলে আয়, হাতের ওপর হাত,

জলে এবং স্থলে ঘুরি-ফিরি; কেয়া বাত!

তিন পাক তুই ঘোর, মুই ঘুরি তিন পাক,

তোর জন্যেও বোন তিন পাক তোলা থাক।

তিন তিরিককে নয়, দিলখুশ বড় আজ,

বন বন কোরে ঘোরা, এটাই মোদের কাজ।

 

[ম্যাকবেথ ও ব্যাঙ্কোর প্রবেশ]

 

ম্যাকবেথ:           এমন দিন দেখিনি আগে,

সুখ, দুঃখ জাগে একসাথে।

 

ব্যাঙ্কো:               আর কত পথ চলতে হবে? কত দূর গেলে ফোরেস?

একি! এগুলো কি! কী বিদঘুটে বেশবাস!

দেখে মনে হয় এই দুনিয়ার জীব নয়,

তবু এই মাটিতেই বাস।

ওহে, তোমরা কি জীবিত? প্রশ্ন করলে উত্তর দিতে পারবে?

ভাষা বোঝো আমাদের?

মুখ দেখে তো মনে হচ্ছে বুঝতে পারছ।

ওমা! কর্কশ আঙ্গুল দিয়ে ফ্যাকাসে ঠোঁট কেন চেপে ধরছ?

তোমাদের দেখে মহিলা মহিলা লাগে,

আবার দাড়ি দেখে কেমন অন্যরকম চিন্তা মাথায় জাগে।

 

ম্যাকবেথ:           কথা বলো,

বলে ফেল, যদি থাকে ভাষা।

 

প্রথম:                স্বাগত ম্যাকবেথ, স্বাগত হে গ্লামস্-অধিপতি।

 

দ্বিতীয়:              স্বাগত ম্যাকবেথ, স্বাগত হে কডোররাজ।

 

তৃতীয়:              স্বাগত ম্যাকবেথ, স্বাগত হে ভবিষ্যতের রাজাধিরাজ।

 

[ম্যাকবেথ চমকে ওঠেন। হাত থেকে তরবারি প’ড়ে যায়।]

 

ব্যাঙ্কো:              একি! চমকে উঠলেন কেন?

শুভ সংবাদ শুনে কেন আপনি শঙ্কিত?

[ডাইনিদের] তোমরা সত্য না মায়া!

চর্মচক্ষে যা দেখছি, তোমরা কি তাই?

আমার মহান বন্ধুকে তোমরা শুনিয়েছ

সৌভাগ্যের বাণী। বলেছ রাজকীয় ভবিষ্যতের কথা।

কিন্তু ওগো বোনেরা, আমার বেলায় কেন তোমরা চুপ?

যদি সত্যিই হও ভবিষ্যতদ্রষ্টা,

যদি অনাগত সময়ের গর্ভ বীজে পৌঁছোয় তোমাদের দৃষ্টি,

যদি প্রকৃতই তোমরা দেখতে পাও কোনটি হবে অঙ্কুরিত,

কোনটি শুকিয়ে হবে শেষ,

তাহলে বলো আমায়—কি ভবিতব্য আমার।

নির্ভয়ে বলো।

তবে মনে রেখ—তোমাদের কৃপা ভিক্ষা করি না আমি,

ভয়ও করি না!

 

প্রথম:                জয় হোক!

 

দ্বিতীয়:              জয় হোক!

 

তৃতীয়:              জয় হোক!

 

প্রথম:                ম্যাকবেথের চেয়ে কম, তবু তাঁর চেয়ে বেশী।

 

দ্বিতীয়:              নও তত সুখী, তবু অধিক ভাগ্যবান!

 

তৃতীয়:              নিজে রাজা হবে না, তবু তোমার বংশধররাই হবে সম্রাট!

তাই জয় হোক, জয় হোক ম্যাকবেথ ও ব্যাঙ্কোর!

 

প্রথম:                জয় হোক ব্যাঙ্কো ও ম্যাকবেথের!

 

ম্যাকবেথ:          দাঁড়াও! দাঁড়াও ওগো অস্পষ্টভাষিণীরা। আরও, আরও বলো আমায়!

হ্যাঁ, পিতা সিনেলের মৃত্যুতে আমি গ্লামস্-অধিপতি ঠিকই,

কিন্তু কডোরের দায়িত্ব! কীভাবে?

কডোরের সামন্তরাজ তো এখন সসম্মানে জীবিত। আর রাজা?—

স্কটল্যান্ড অধীশ্বর হওয়া! সে তো অলীক কল্পনা! স্বপ্নেরও অতীত!

কোথা থেকে পেলে এমন অদ্ভুত বার্তা?

কেন এই অভিশপ্ত উপত্যকায় এসে দ্রষ্টার বেশে

পথ-রোধ করে দাঁড়ালে আমাদের?

বলো, বলতেই হবে তোমাদের! আমি আদেশ করছি—

দাও উত্তর!

 

[ডাইনীদের অন্তর্ধান]

 

ব্যাঙ্কো:               মাটিরও কি বুদবুদ আছে জলের মতন?

কোথায় মিলিয়ে গেল ওরা?

 

ম্যাকবেথ:         হাওয়ায়। যা মনে হয়েছিল স্থূল মনুষ্য শরীর,

তাই পলকে মিলালো পঞ্চভূতে!

আরও কিছু সময় থেকে গেলে পারতো, তাই না?

 

ব্যাঙ্কো:               সত্যি কি কিছু ছিল এইখানে?

নাকি এ আফিমের নেশায়

শৃঙ্খলিত মস্তিষ্কের ঘোর?

 

ম্যাকবেথ:           তোমার সন্তানেরা রাজা হবে।

 

ব্যাঙ্কো:               আপনি নিজেই হবেন রাজ-রাজ্যেশ্বর!

ম্যাকবেথ:           কডোর-অধিপতিও হব বলে গেল না?

 

ব্যাঙ্কো:               হ্যাঁ, অক্ষরে অক্ষরে এমনই কথা করেছে বর্ণনা।

কে, কে আসছে এদিকে?

 

[রস ও অ্যাঙ্গাস-এর প্রবেশ, সাথে সৈনিক]

 

রস:                   স্বাগত, স্বাগত, স্বাগত ম্যাকবেথ ও ব্যাঙ্কো।

বীর ম্যাকবেথ, মহান নৃপতি শুনেছেন আপনাদের বিজয় বার্তা।

বিদ্রোহী দমনে আপনার বীরত্বের কথা শুনে বিস্মিত তিনি।

মহাবল নরওয়ে সেনার সম্মুখে আপনার মৃত্যু-বিভীষিকার প্রতিমূর্তি

রূপে আগমন পাঠ করে তিনি হতবাক! আনন্দিত রাজ্যেশ্বর।

চারিদিক থেকে ভেসে আসছে প্রশংসাবাণী।

 

অ্যাঙ্গাস: মহান নৃপতির তরফ থেকে ধন্যবাদ জ্ঞাপনে এসেছি আমরা।

নিয়ে যেতে এসেছি রাজ-দরবারে।

পুরস্কার প্রদানের ধৃষ্টতা নেই আমাদের।

 

রস:                   তবে হে ম্যাকবেথ, এক মহান গৌরব আছে আপনার অপেক্ষায়।

রাজাজ্ঞা বলে ঘোষণা করি—আজ থেকে আপনি কডোর অধিপতি।

 

ব্যাঙ্কো:               একি! শয়তানী বাণী সত্য হল তবে!

 

ম্যাকবেথ:          কডোরের সামন্তরাজ তো এখনও জীবিত।

কেন তাহলে ঐ উপাধিতে আমাকে ভূষিত করা?

কেন আমায় সজ্জিত করা অপরের পরিচ্ছদে?

 

অ্যাঙ্গাস:           বিচারের সরু সুতোয় ঝুলছে কডোর-অধিপতির জীবন।

প্রকাশ্যে সে যোগ দিয়েছিল শত্রু শিবিরে।

গোপনে রাজদ্রোহে সে করে এসেছিল সহায়তা—

অশেষ ক্ষতিসাধন করেছিল দেশের।

শয়তান শিরোমণি নিজে মুখে স্বীকার করেছে সে কথা—

ফলে আজ সে ক্ষমতাচ্যুত।

 

ম্যাকবেথ:           [স্বগত] গ্লামস্ এবং কডোরের অধীশ্বর আমি!

আরও বড় সৌভাগ্য কি তাহলে অনতি দূরেই!

[রস ও অ্যাঙ্গাস-কে] ধন্যবাদ বন্ধুগণ!

[ব্যাঙ্কোর প্রতি একান্তে] তোমার মনে কি এমন আশা জাগছে না

যে তোমার আপন সন্তান হবে রাজাধিরাজ?

আমায় যারা করেছিল কডোর-অধিপতির সম্ভাষণ,

তাদেরই তো ছিল এই দৈববাণী।

 

ব্যাঙ্কো:             অখণ্ড বিশ্বাসে যদি গ্রহণ করেন

ঐ বাণী, তাহলে তো কডোর অধিপতি অতিরিক্ত

আরও বৃহৎ কিছু পাওয়ার কথা আপনার—

স্কটল্যান্ডের রাজ সিংহাসন! সত্যিই, বই অদ্ভুত এ ঘটনা।

তবে এমন ঘটে কখন কখন।

ধর্ম-পথ থেকে আমাদের বেপথু করতে—

ডুবিয়ে দিতে নারকীয় পঙ্কে

আঁধারবাসীরা বলে ক্ষুদ্র সত্য বাক্য।

[রস ও অ্যাঙ্গাস-কে] হে ভ্রাতৃবৃন্দ, দয়া করে একটু গুনবেন।

 

ম্যাকবেথ:           [স্বগত] দুটি সত্য হয়েছে উচ্চারিত!

এ কি তাহলে রাজকীয় সৌভাগ্যের সূচনা!

এমন অলৌকিক ভাষণ কখনও অশুভ হতে পারে না—

অবশ্য একে শুভও বলা যায় না।

যদি অশুভই হতো,

তাহলে কেন শোনাল আমায় গৌরবময় সত্য?!

আমি তো এখন কডোরেরও অধিপতি।

কিন্তু শুভই যদি হবে তাহলে কেন শিরদাঁড়ায় খেলে যায় এমন ভয়াল শিহরণ!

কেন চিত্তে জেগে ওঠে বীভৎস ছবি, চুল হয় কণ্টক সমতুল—

শারীরবৃত্তীয় নিয়ম লঙ্ঘন ক’রে কেন পাঁজরে আঘাত হানে হৃৎপিণ্ড!

উফ! এই কল্প চিন্তা যেকোনো বাস্তব বিপদের চেয়েও ভয়ঙ্কর।

নরহত্যা এখনও এক সুদূর কল্পনা মাত্র,

তবু কেন আমার সমগ্র সত্ত্বা কম্পিত ত্রাসে?

কেন বাস্তবতার হাত ছেড়ে আমি হয়ে পড়ছি অলীকের হাতে বন্দী?!

 

ব্যাঙ্কো:               আমাদের সহযোদ্ধা কোনও গভীর চিন্তায় মগ্ন হয়েছেন?

 

ম্য্যাকবেথ:          [স্বগত] যদি দৈবের বলেই রাজা হই,

যদি ভাগ্যদেবী স্বয়ং রাজ-কিরীট পড়িয়ে দেন এই শিরে,

তাহলে আমার তো কোনও প্রচেষ্টার দরকার নেই।

 

ব্যাঙ্কো:               আচম্বিতে এসে পড়েছে নতুন সম্মান

নতুন পরিচ্ছদ অনভ্যস্ত শরীরে জাগিয়ে তোলে অস্বস্তি।

 

ম্য্যাকবেথ:          [স্বগত] যা হওয়ার তাই হোক!

কালের রথ এগিয়ে চলুক দুর্যোগময় দিনের ভেতর দিয়ে।

 

ব্যাঙ্কো:               মহান ম্যাকবেথ, আমরা আপনার অপেক্ষায় আছি।

 

ম্য্যাকবেথ:          ক্ষমা করুন ভদ্রমহোদয়গণ,

ক্লান্ত মনে ফুটে উঠছিল অতীত দিনের নানান কথা।

আপনাদের অপেক্ষা করানর জন্য সত্যি আমি দুঃখিত।

চলুন, রাজাধিরাজ সমীপে রওনা দিই।

ব্যাঙ্কো:             অতি উত্তম, চলুন তাহলে।

 

ম্যাকবেথ:           [ব্যাঙ্কো-র হাত চেপে ধরে] তত দিন নীরব থেক বন্ধু।

 

To be Contd Next Sunday …….

 

Macbeth translated in Bengali by Basu Acharya

Shakespeare play Macbeth translated

 

Basu Acharya is a freelance columnist and editor. Previously he was associated with ‘The Verdict’ as ‘Principal Correspondent’ of Bengal. His important works include ‘Sixty Years of Victory Over Fascism’ (Director), ‘Under the Red Banner’ (Author), ‘Aboruddhyer Journal’ (Compiler) ‘Mukhomukhi Stalin’ (Compiler), ‘Collected Works of Charu Mazumdar – Vol. I, Vol. II’ (Editor), ‘Charu Majumdar-parabarti Parjaye Naxal Andoloner Pramanya Dolil Sankalan’ (Editor).

 

Image Credits: Google Images

 

Shakespeare Play Macbeth Translated in Bengali by Basu Acharya

Shakespeare’s play Macbeth translatedFor brave Macbeth–well he deserves that name–
Disdaining fortune, with his brandish’d steel,

Which smoked with bloody execution,
Like valour’s minion carved out his passage…
Till he unseam’d him from the nave to the chaps,
And fix’d his head upon our battlements. (1.2.15-20)

These lines from the play Macbeth am sure are not new to anyone who has read Shakespeare’s immortal dramas. While we may have read and enjoyed Shakespeare in different forms and languages, it is now time that we Bengalis get to read these classics in our own mother tongue.

The author Basy Acharya has tried to present this immortal play in Bangla for all Bangalis and has put in his best efforts to retain the original flavor of Shakespeare’s writings.. Read it to enjoy it …..

Shakespeare’s play Macbeth

(মূল নাটক – মহাকবি উইলিয়াম শেক্সপিয়র, রূপান্তর ও সম্পাদনা – বাসু আচার্য)

 

দৃশ্য

[একটি নির্জন স্থান। বজ্র-বিদ্যুৎ। তিন ডাইনির প্রবেশ।]

প্রথম:                তিনজনে ফের মিলব কবে

ঝড়-বর্ষায় দেখা হবে?

দ্বিতীয়:              ঝুট ঝামেলা, হৈ-হল্লা যখন যাবে থেমে

                        জেতা-হারার ফয়সালাগুলো সবাই যাবে জেনে।

তৃতীয়:              সূর্য্যি পাটে নামার আগে

আমাদের ঠিক দেখা হবে।

প্রথম:                বলি জায়গাটা কী? কোন্ সে স্থান?

দ্বিতীয়:              তেপান্তরের মাঠের শেষে…

তৃতীয়:              বীর ম্যাকবেথ আসবে সেখান।

প্রথম:                ওরে ভাম বিল্লি,আসছি বাপু আসছি, থামা চিল্লামিল্লি।

দ্বিতীয়:              কোলা ব্যাঙ ডাকছে ঘ্যাঙরঘ্যাঙ।

তৃতীয়:              এক্ষুনি এক্ষুনি এক্ষুনি!!

সমবেত: ভালো আজকে মন্দ হ’ল, মন্দ হ’ল ভালো,

বিষ বাতাসে গা এলিয়ে উড়তে উড়তে চলো।

[প্রস্থান]

 

দৃশ্য

[জঙ্গলের কাছে রাজার শিবির। রাজ-দুন্দুভি বেজে ওঠে। রাজা ডানকান, ম্যালকম, ম্যাকডাফ, ডোনালবেন, লেনক্স ও অন্যান্য সভাসদরা প্রবেশ করে এবং সাক্ষাৎ পায় এক রক্তাক্ত সৈনিকের।]

ডানকান:           কে এই শোণিত-স্নাত ব্যক্তি?

ওর অবস্থা দেখে বোধ হয়—

যুদ্ধের সর্বশেষ বিবরণ জানাতে পারবে ও।

ম্যালকম:            ইনি সেই সেনানী, মহারাজ,

যিনি একজন বীরের মতোই

আমাকে বন্দিদশা থেকে উদ্ধার করেছিলেন।

স্বাগত হে সাহসী বন্ধু।

মহারাজকে জানাও তুমি কী দেখে এলে

রণক্ষেত্র ত্যাগ করার সময়?

রক্তাক্ত সৈনিক:  বড় অনিশ্চিত ছিল যুদ্ধের গতি।

দুই ক্লান্ত সাঁতারুর মতো দুপক্ষ একে ওপরকে জাপটে ধ’রে

শ্বাসরোধ করতে চাইছিল।

নিষ্ঠুর ম্যাকডনওয়ালড একজন সুযোগ্য বিদ্রোহী।

দুনিয়ার সকল নীচতা

সর্বাত্মকভাবে ধারণ করেছে সে।

পশ্চিম দ্বীপপুঞ্জের ভয়ানক সৈন্যবাহিনী তার সহায়।

ভাগ্যদেবীও যেন পোষা বেশ্যার মতো

সদয় হাসি হেসে তার এই অন্যায্য দাবীর সমর্থক!

তবু সবই হ’ল ব্যর্থ।

মহাবীর ম্যাকবেথ—মহাবীরই বটে,

নিয়তিকে পরাজিত ক’রে,

হাতের ধূমায়িত রক্তঝরা তরবারি দিয়ে

শত্রুব্যূহ ধ্বংস ক’রে এসে দাঁড়ালেন

ঐ বজ্জাতটার সামনে।

তার পর, বিনা বাক্যব্যয়ে,

বিদায় অভিভাষণটুকু না জানিয়ে,

তরবারির এক আঘাতে ওর নাভিকুণ্ড থেকে চোয়াল বরাবর

সেলাই কাটার মতন দু’ফাঁক ক’রে দিলেন।

ছিন্ন করলেন মস্তক—

স্থাপন করলেন দুর্গ প্রাকারের শীর্ষে।

ডানকান:           আহা! মহাবীর সম্বন্ধী আমার! সুযোগ্য রাজভক্ত!

রক্তাক্ত সৈনিক: কিন্তু যে পূব দিগন্তে সূর্যদেব ছড়ান আলোকরশ্মি

সেই আকাশেই ভেঙ্গে পড়ে ভয়ঙ্কর সমুদ্র-ঝড়।

যে দিক থেকে বয়ে আসে বসন্তের স্নিগ্ধ বাতাস

পরমুহুর্তে সেই দিকই হয়ে ওঠে বিপদসংকুল।

হে স্কটল্যান্ড-অধীশ্বর, শুনুন, শুনুন মন দিয়ে,

ম্যাকডনওয়ালড-এর অশুভ বাহিনীকে

যখনই করা হ’ল বিতাড়িত,

যখনই তারা পালাতে লাগল রণক্ষেত্র ছেড়ে,

তখনই নরওয়ে-রাজ

নতুন সেনা সমেত হানলেন আক্রমণ।

ডানকান:           এতে কি হলেন সন্ত্রস্ত

আমাদের দুই সেনানায়ক—ম্যাকবেথ ও ব্যাঙ্কো?

রক্তাক্ত সৈনিক: হে মহারাজ,

ঈগল কি কখনও চড়াইপাখিকে ডরায়?

সিংহ কি ভয় পায় শশককে?

এই আক্রমণে দ্বিগুণ বারুদে ঠাঁসা

কামানের গোলার মতন

বিরোধী বাহিনীর ওপর আছড়ে পড়লেন

দুই মহারথী—

শত্রু বিধ্বস্ত।

মনে পড়ে যায় রক্তস্নাত গলগথার কথা।

আর পারিনা মহারাজ,

শরীর অবসন্ন হয়ে আসে আজ।

ক্ষতস্থান বিদ্রোহ করে, দাবী জানায় শুশ্রূষার।

ডানকান:           সৈনিক,

তোমার এই ক্ষতস্থান তোমার বীরত্বের স্মারক,

ঠিক তোমার বার্তা যেমন সম্মানজনক।

ওকে শল্যবিদের কাছে নিয়ে যাও।

[রক্তাক্ত সৈনিক এবং এক পরিচারকের প্রস্থান।]

ও কে আসছে এ দিকে?

ম্যালকম:            রসের সুযোগ্য অধিপতি।

লেনক্স: কেন এমন চাঞ্চল্য ওর দুই চোখে?

দেখে মনে হয় নিয়ে এসেছে কোন অদ্ভুত সংবাদ।

রস:                   মহারাজের জয় হোক।

ডানকান:           কোথা থেকে আগমন, সামন্তরাজ?

রস:                   ফাইফ থেকে আসছি, মহান নৃপতি।

নরওয়ের গগনচুম্বী কেতন

যখন আমাদের সৈন্যদলের মন

করে তুলেছে শঙ্কায় শীতল,

যখন নরওয়ে-অধিপতি অসংখ্য সেনা

ও বিশ্বাসঘাতক কডোরের সামন্তরাজকে সঙ্গে নিয়ে

আমাদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছে,

শুরু হয়েছে মরণপণ লড়াই,

তখন বেলোনার স্বামীর অবতারে ম্যাকবেথ

পরাক্রমের পরীক্ষা দিতে রুখে দাঁড়ালেন তার পথ।

বিদ্রোহী শয়তানের বাসনা করতে নিবৃত্ত

অস্ত্রে-বর্মে চলল তীব্র আঘাত ও প্রত্যাঘাতের লড়াই…

শেষমেশ, আমাদের হয়েছে বিজয়।

ডানকান:           স্বর্গ সুখ পেলাম এই সংবাদে!

রস:                   নরওয়ে নৃপতি এখন সন্ধিকামী।

কিন্তু সাধু কলমে’র দ্বীপে এসে যতক্ষণ না

তিনি দেবেন দশ সহস্র মুদ্রা ক্ষতিপূরণ

ততক্ষণ মৃত সৈনিকদের সমাধিস্থ করার

তিনি পাবেন না অধিকার।

ডানকান:           কডোরের ঐ দুরাচার সামন্ত

আর যেন ছলে-কৌশলে

লাভ করতে না পারে স্নেহের বিশ্বাস।

যাও, অবিলম্বে ঘোষণা করে দাও ওর মৃত্যুদণ্ডাদেশ।

ঐ উপাধিতে ভূষিত করো ম্যাকবেথকে।

রস:                   রাজাজ্ঞা করব পালন।

ডানকান:           সে যা হারিয়েছে

মহান ম্যাকবেথ তা করেছে লাভ।

[প্রস্থান]

Shakespeare play Macbeth translated in Bengali by Basu Acharya

Shakespeare play Macbeth translated

 

Basu Acharya is a freelance columnist and editor. Previously he was associated with ‘The Verdict’ as ‘Principal Correspondent’ of Bengal. His important works include ‘Sixty Years of Victory Over Fascism’ (Director), ‘Under the Red Banner’ (Author), ‘Aboruddhyer Journal’ (Compiler) ‘Mukhomukhi Stalin’ (Compiler), ‘Collected Works of Charu Mazumdar – Vol. I, Vol. II’ (Editor), ‘Charu Majumdar-parabarti Parjaye Naxal Andoloner Pramanya Dolil Sankalan’ (Editor).