Tag: bengali-revolutionary

Writer Nabarun Bhattacharya Leaves Mortal World at 66

Writer-Nabarun-Bhattacharya

নবারুণ ভট্টাচার্য

১৯৪৮ (২৩শে জুন) – ২০১৪ (৩১শে জুলাই)

নবারুণ ভট্টাচার্য সেই মানুষটির নাম, যাঁর জীবনদর্শন স্থিতি পেয়েছিলোএই অনুভবে যে, মানুষ সসাগরা বিশ্বের কেন্দ্রীয় তথা শ্রেষ্ঠতম প্রজাতি নয়। ‘KANGAAL MAALSAT’ (2003)- এর মতো উপন্যাসে তথাকথিত বাজারী মানসিকতার সুখী গৃহকোণে ঘটিয়েছেন ফ্যাতাড়ুর গদ্যবিস্ফোরণ, লিখেছেন একের পর এক ছকভাঙ্গা ছোটোগল্প। তবু নিজের অভিমুখে উজানযাত্রা করার সময় কিন্তু নবারুণ তাঁর আত্মার আত্মীয় কবিতাকেই সঙ্গী করে নিতেন। অমানবিকতার উৎসব ঘিরে গড়ে ওঠা বুজরুকির সার্কাসকে ঘেন্না মেশানো উপেক্ষায়‌, তাঁর সৃজন বারংবার আক্রমণ করে গেছে আর ছন্দের ভাঙ্গাগড়াকে হাতিয়ার করে সদর্পে ঘোষিত  হয়েছে সেই নির্মোহ সংলাপ, – ‘EI MRTYU UPOTYOKA AMAAR DESH NA’ (2004)। প্রথম জীবনে কট্টর  কম্যুনিজ্‌মে বিশ্বাসী নবারুণ পরবর্তীকালে এই মতবাদে আর আস্থা রাখতে পারেন নি। মানুষ ও মতাদর্শের আস্ফালন থেকে মুখ ফিরিয়ে নেওয়া এই মানুষটির চিতা হয়তো ‘HERBERT’ (1994)- এর মতো জমে থাকা বিদ্রোহে ফেটে পড়বে না। বইভাবুক দুনিয়ায় কিছুদিন শোকতাপ, দুঃখিত চেহারারা চেশায়ার বিড়ালের মতো ঝুলে থেকে শেষমেষ মিলিয়ে যাবে। তবু চিন্তার গূঢ় গভীরে কোনো অবিরাম ঘুণপোকা হয়তো কুরে কুরে তুলে আনবে এই ভাবনা, একই বছরে জাদুবাস্তবতার দুই নক্ষত্র গাড় আঁধারে মুখ লুকালেন। একশ বা তারও বেশি সময়পরিধি জুড়ে থাকা কোনো নিঃসঙ্গতা তবে কি এক করে দিলো নবারুণ ভট্টাচার্য ও গ্যাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কেজকে? প্রশ্ন সহজ নয়, উত্তরও অজানা, তবু বিচ্ছিন্ন কষ্টদায়ক একাকীত্বকে অতিক্রম করে সদর্থক অন্বয়ের সন্ধানী নবারুণ ভট্টাচার্য লোকান্তরে থেকেও তাঁরই প্রিয় লেখক ও নাট্যকার মিখাইল বুলগানিনের সেই উক্তির আয়ুতেই চিরভাস্বর হয়ে থাকবেন, “পাণ্ডুলিপিরা পুড়ে যায় না”।

Team Sholoana Bangaliana fondly remembers the legendary writer! R.I.P

Image Credits: Google Images