Tag: Dadasaheb Phalke Award

Rajkummar Rao Overwhelmed at receiving the Dadasaheb Phalke Award so Early in his Career

Raj-Kumar-Rao-award

Talented actor, Rajkummar Rao who has been mesmerizing the audiences in role after role added yet another feather to his cap for his role in the film ‘Citylights’. The actor received the prestigious ‘Dadasaheb Phalke Award’. With critically-acclaimed films like Kai Po Che!, Shahid and Queen in his kitty, Rajkummar is soon growing as one of Bollywood’s most promising and dependable actors.

The ace actor confirmed that he got to know about the award only three days before the Dadasaheb Phalke Awards function. The actor also added that it was very unexpected and out of the blue but a great feeling nonetheless. Having worked very hard for the role in Citylights, the actor was on cloud nine on receiving such a prestigious award so early in his career.

Dadasaheb-Phalke-award

Rajkummar Rao will next be seen in Mohit Suri’s intense love story, ‘Hamari Adhuri Kahani’ which is slated for release in June 2015. He will also be seen in another film titled ‘Shimla Mirchi’.

Congratulations Rajkummar!! Keep on with the good work..

Our Twitter Handle: @Sholoana1
Google+ ID: +Sholoana

 

P.C. Chandra Group Acknowledges the Contribution of the People behind the Cameras; Technicians and Artists Awarded

Bengal-Technician-awards

P.C. Chandra Group along with Eastern India Cinetel Welfare Trust felicitated some of the technicians, yester year actors and actresses from the film fraternity. The event was a star studded one with Rituparna Sengupta and Soumitra Chatterjee also receiving the felicitation for their contribution to the film industry.

P.C.-Chandra-Awards

Under the P.C. Chandra Tribute, the group has been sponsoring Rs. 5000 per month for a period of one year to each, a technician, character artists and directors. The group has also been paying Rs. 10,000 per month as a monthly pension for a lead actress for a period of one year.

Speaking at the occasion, Rituparna Sengupta said “I am honored that I have been felicitated along with the other technicians and directors from the film industry. The initiative undertaken by P.C. Chandra Group is unique and I am very happy to be a part of it”.

Under the P.C.Chandra Tribute, about twenty people from the film fraternity were awarded. Baidyanath Basak (cameraman), Sushil Biswas (director), Raj Das (production manager), Khokon Das (production assistant), Sasanka Sanyal (Art director), Shiuli Majumdar (actress) and Bulbul Chowdhuri (actress) were among the people who were honored with the felicitation.

Rituparna-Sengupta-poster

Speaking with Sholoana Bangaliana, Mr. U. K. Chandra, Managing Director, P. C. Chandra jewelers said “This is a great privilege for us to recognize those people who form the back bone of the Bengali film industry. We are lending a helping hand to those personalities from the Bengali film industry requiring such financial support and recognition. We are extremely happy at helping these individuals”.

The P. C. Chandra Group has always been a socially responsible corporate body. The group has been consistently helping educational and medical institutions. With this felicitation ceremony, the group aims to reinforce the corporate philosophy and internal culture of trust, quality and honesty.

Priyanka Dutta

Watch Interesting Videos from Tollywood and Bollywood with us at: https://www.youtube.com/channel/UC2nKhJo7Qd_riZIKxRO_RoA
Our Twitter Handle is: @Sholoana1

Tollywood Hero Abir Chatterjee Graces Women Achiever Awards 2014

Women-Achiever-Awards-2014

Launcherz, which is a PR & Event management company, based in Kolkata announced a unique Award Honour – WAA’s (Women Achiever Awards 2014) at De Sovrani, in the presence of Tollywood Hero Abir Chatterjee. The event was organized with an aim to honor women as well as support the Best Friendz Society (NGO) to build an activity centre for the deprived and poor children.

WAA was primarily organized to glorify the accomplishments and contributions of women belonging to the Eastern Indian community development. The ceremony reinstated the core Indian philosophy of respecting women as a form of Shakti as time and again they have in many different forms come to the rescue of mankind.

Model- Jessica Gomes Surana, Scuba Diver- Rajpreet Warna, Journalist- Lalona Das, Tricologist- Sabita Khaitan, Actress- Tanusree Chakraborty, Teacher- Rakshinda Junaid, Entrepreneur- Swati Bajoria, Social Worker- Anjali Burman were the 8 women achievers who received the awards on at the event.

Speaking at the occasion, Mr. Rajiv Lodha and Ms Shagufta Hanaphie (Co- founders, Launcherz) “The   purpose of WAA is not only to acknowledge women who have made a positive impact in society; WAA strives to pass on enlightenment, empowerment and encouragement. We believe that our endeavor will send out a strong message that women folk of our country is no longer confined to house hold work but they have achieved higher goals by shear talent, sacrifice and hard work”.

Women Achiever Awards 2014 is a great way to appreciate the women achievers and events such as these will surely help the current society that is ridden with ill intentions towards women change their outlook and accept the fairer sex as the mightier one too.

Priyanka Dutta

Sholoana Bangaliana’s tribute to Sri. Sukumar Ray- The Father Of Bengali Satirical Nonsensical Literature

 abol tabol

 

Sukumar Ray was the son of the famous children’s fairy tale writer Upendrakishore Roy Chowdhury, the father of the greatest filmmaker of India, Satyajit Ray and also the grandfather of Tollywood filmmaker Sandip Ray. Sukumar Ray was the founder secretary of “Monday Club” (মণ্ডা ক্লাব), a weekly gathering of like-minded people at the Ray residence, where the members were free to express their opinions about the world at large. Eminent personalities like Rabindranath Tagore and Saratchandra Chattopadhyay also visited the Monday Club meetings, to honour the invitation of Sukumar Ray. A number of poems were penned by Sukumar Ray in relation to the matters concerning “Monday Club”, primarily soliciting attendance, announcing important meetings etc.

 

আয়রে ভোলা খেয়াল খোলা

স্বপনদোলা নাচিয়ে আয়

আয় রে পাগল আবোল তাবোল

মত্ত মাদল বাজিয়ে আয়

আজ ঈশ্বর দিবস। আজ থেকে ঠিক একশো ছাব্বিশ বছর আগে জন্ম হয়েছিল সেই বেয়ারা সৃষ্টিছাড়া নিয়মহারা হিসেবহীন ঈশ্বরের, যিনি তাঁর অসম্ভবের ছন্দে, উধাও হাওয়ার স্রোতে আজও ভাসিয়ে নিয়ে চলেছেন আমাদের। তিনি সুকুমার রায়। আমরা যারা বড্ড ছোট, বড্ড সাধারণ, বড্ড হিসেবী, যাদের জীবন ঘিরে বারবার প্রতিধ্বনিত হয় শুধুমাত্র ধুত্তেরিকা আর ধ্যাত্তেরিকা, আমাদের সেই বিরক্তিহীন বাঁচতে চাওয়ার বৃথা আশার দিকে সটান তাকিয়ে মুচকি হেসে যিনি আমাদের এই আকালেও স্বপ্ন দেখতে শেখান, তিনি হলেন সুকুমার রায়। ঈশ্বর, পৃথিবী এবং ভালোবাসাকে গুলে খাওয়া, যুগের থেকে অনেকটা এগিয়ে থাকা এমন এক মানুষ, যাঁকে এখনো আমাদের চল্লিশ না পেরিয়েও চালসে পড়ে যাওয়া চোখ তকমা দেয় শুধুমাত্র শিশু সাহিত্যিকের।

এখনো যখন মাঝ ছাদে একলা দুপুর নামে, চিলেকোঠার ঘরে অল্প অল্প করে নেমে আসতে থাকে শান্ত রূপকথারা, আরো পশ্চিমে বড় হয়ে উঠতে থাকে ছায়া, যখন শৈশব পালন করে জ্যোৎস্নার উৎসব, তখন ঘুমপাড়ানি গানের মত সারা গায়ে জেগে থাকে পাগলা দাশু, খুড়োর কল,কাতুকুত বুড়ো, কাগেশ্বর কুচকুচে, আহ্লাদীরা। কবীর সুমন বলেছিলেন, ‘তোর গানে পেঁচী রে, সব ভুলে গেছি রে’ এর মত প্রেমের কবিতা একমাত্র সুকুমার রায়ের পক্ষেই লেখা সম্ভব। আর পুণ্যলতা চক্রবর্তী লিখেছিলেন, ছন্দ মেলানোর ব্যাপারে দাদা কখনো হারত না। যত শক্ত হোক না কেন, চট করে মিলিয়ে দিত। আট বছর বয়সে যাঁর প্রথম কবিতা ‘নদী’ এবং নয় বছর বয়েসে দ্বিতীয় কবিতা ‘টিক টিক টং’ ছাপা হয়েছিল ‘মুকুল’ পত্রিকায়, যাঁর ম্যাজিক ঝুলিতে রয়েছে ‘সন্দেশ’ এবং ‘মন্ডা ক্লাব’ এর মত অসম্ভব মজার সমস্ত জিনিস, তিনি শুধু একশো ছাব্বিশ বছর কেন, এক লক্ষ ছাব্বিশ বছর পরেও থাকবেন কন্টেম্পোরারি। তাঁর অজস্র গপ্প ছড়িয়ে রয়েছে পুণ্যলতা চক্রবর্তীর বই ‘ছেলেবেলার দিনগুলি’ তে। যদি সত্যিই জানতে চান এই মানুষটিকে এবং তাঁর সেই অসাধারণ পরিবারটিকে, তাহলে অবশ্যই পড়বেন এই বই। আরো অনেক কথা বলার ছিল, জানার ছিল। কিন্তু বাধ সাধল পাগলা দাশু। কানে কানে এসে বলে গেল, অতিরিক্ত কৌতূহল ভাল নয়। কাঁচকলা খাও।

 

Image Credits: Google Images

Article By:

sagnik roychowdhury

 

Sagnik Roy Chowdhury is an upcoming young & talented screenplay writer from Tollywood. He has got movies like “Bicycle Kick” to his credit as a script & dialogue writer. He also writes occasional columns for various Bengali newspapers and magazines.

Enhanced by Zemanta

Legendary Singer Manna Dey is no more; Sholoana Bangaliana salutes the Musical Maestro

(May 1, 1919 – October 24, 2013)

Prabodh Chandra Dey (1 May 1919 − 24 October 2013) popularly known by his stage name Manna Dey was an eminent vocalist, who has innumerable private albums to his credit and also has sung for Hindi and Bangla movies. Manna Dey debuted with the film Tamanna in 1942, and thereafter went on to record more than 4000 songs during 1942-2013. The Central Government of India honored him with the Padma Shri in 1971, the Padma Bhusan in 2005 and the most prestigious film award, which is the Dadasaheb Phalke Award in 2007. Manna Dey also recorded songs in several other regional languages, apart from Hindi and Bengali. His best years in the Hindi playback singing can be outlined as 1953-1976. Manna Dey’s Gurus were Krishna Chandra Dey, who was a blind singer-composer and Ustad Dabir Khan, who was a master of traditional Indian classical music. Manna Dey has also sang duet songs with other male singers like Kishore Kumar, Md. Rafi, Bhupinder Singh, apart from leading female playback singers like Suraiya, Geeta Dutt, Asha Bhonsle and Lata Mangeskar.

যে নামে আপামর ভারতবাসী তাঁকে চেনেন নামটির অন্য একটি মানে আছে “মান্না” স্বর্গ থেকে পাঠানো খাবার বা ঈশ্বর প্রেরিত খাবার। ঈশ্বর যখন বিশ্বসৃষ্টি করেছিলেন তখন ষষ্ঠ দিবসের গোধুলি লগ্নে এই অপরূপ বস্তু সৃষ্টি করেছিলেন তাঁর সৃষ্টি কে জীবিত রাখার জন্যে। কথাটা হয়ত অনেকের মানতে অসুবিধা হতে পারে, কিন্তু মান্না দে মহাশয়ের অপরুপত্ত্ব মানতে কোন মানুষের কোন রকমের সন্দেহের অবকাশ নেই।

উপরের লেখা সন তারিখ গুলিকে কেবলমাত্র দুটি দিন হিসাবে আমরা যদি দেখি তাহলে প্রথম দিনটিতে তিনি জন্মগ্রহণ করেছিলেন পূঁর্ণ চন্দ্র দে ও মঁহামায় দেবীর সংসারে আর দ্বিতীয় দিনটি আমরা হারালাম তাঁর পার্থিব দেহটিকে। কিন্তু যে স্বর্গীয় সৃষ্টি তিনি আমাদের মধ্যে রেখে দিয়ে গেলেন তা অবিনশ্বর বলেই চিহ্নিত ও স্বীকৃত।

লেখাপড়া শুরু ‘ইন্দুবাবুর পাঠশালা’ নামক অনাম্নি এক পাঠশালায় তারপরে স্কটিশ চার্চ কলিজিয়েট স্কুল  আর বিদ্যাসাগর কলেজ থেকে স্নাতক। এই সময় তাঁর ছোটকাকা সঙ্গীতাচার্য কৃঁষ্ণ চন্দ্র দে মহাশয়ের তত্ত্বাবধানে তাঁর তালিমের শুরু ও পরে স্বর্গীয় ওস্তাদ দবীর খাঁ সাহেবের কাছেও তিনি তাঁর মার্গীয় সঙ্গীতের তালিম নেন। ছোট কাকার প্রভাব ছিল ওনার সাঙ্গীতিক জীবনে প্রচুর। তবে কলেজ জীবনে কুস্তি ও বক্সিং করতেন বলে, এই দুই ক্ষেত্রে তাঁর খ্যাতি ছিল ভালোই এবং সেই সঙ্গে তিন বছর পরপর আন্তঃকলেজ সঙ্গীত প্রতিযোগীতায় তিনিই প্রথম স্থান অধিকার করেছিলেন। বৈপরীত্য বোধহয় প্রতীভাশালীদের একটা চারিত্রিক বৈশিষ্ট।

এই লেখাটা যখন লিখতে শুরু করেছি তখন কোলকাতার সবকটা এফ FM Channel-এ বেজে চলেছে তাঁর গাওয়া অসাধারন সব গান। তাঁর গাওয়া গান দিয়েই তাঁকে শ্রদ্ধা জানাচ্ছি আমরা। কারন Kabir Suman-এর লেখা “তোমার তুলনা আমি খুঁজিনি কখনো, বহু ব্যবহার করা কোন উপমায়” এই রকম হৃদয়স্পর্শী গান সমসাময়িক বাংলায় বোধহয় খুব বেশী নেই। তিনি কত গান গেয়েছিলেন, কোন কোন সুরকারের সুরে গান গেয়েছিলেন এগুলো কেবলমাত্র তথ্য। শ্রদ্ধ্যাঞ্জলীকে তথ্য ভারাক্রান্ত করা আমাদের উদ্দেশ্য নয়। উদ্দেশ্য হল স্রষ্টা কে বিনম্র প্রণাম জানানো।

গান সৃষ্টি হয় অনেকের সম্মিলিত চেষ্টায়, তাতে সামিল থাকেন গীতিকার, সুরকার, গায়ক ও বাদ্যযন্ত্রীরা। সেই মিলিত চেষ্টাকে যিনি প্রান প্রতিষ্টা করেন তিনি গায়ক। তাঁর জন্যে গান লিখেছিলেন প্রখ্যাত গীতিকারেরা, সুর সৃষ্টি করে দিয়েছিলেন সেই রকম দিকপাল সুরকারেরা। কিন্তু তিনি যখন তাঁর কন্ঠ দিয়ে সেই মিলিত সৃষ্টিকে আমাদের কাছে পৌছে দিয়েছেন তখন যেন তাঁর প্রানের বা আত্মার অংশ সেই গানের মধ্যে মিশিয়ে দিয়ে গেছেন, তা নাহলে তাঁর গাওয়া ১৯৫০ এর দশকের গান আজও এত জনপ্রিয় থাকে কী করে?

তাঁর প্রথম প্লেব্যাক স্বর্গীয় কৃষ্ণ চন্দ্র দে মহাশয়ের সুরারোপিত একটি ডুয়েট সহশিল্পী ছিলেন ‘সুরাইয়াজী’ (Suraiya) ছবির নাম “তামান্না” গানটির কথা ছিল বড় সুন্দর “জাগো আয়া ঊষা, পঞ্ছি বোলে জাগো” এ গান যেন আমাদের জানিয়ে দিচ্ছে ওঠ জাগো, দেখ গানের রাজত্ব্যে রাজা তার সভায় প্রবেশ করছেন। অজান্তেই মুহুর্তরা বোধহয় এইভাবেই তৈরী হয়ে যায়। সেই সময়ের বম্বেতে কাকা কৃষ্ণ চন্দ্রের সহকারি সুরকার হিসাবে ছবিতে গানের সুর দিয়ে জীবন শুরু করেছিলেন, কিন্তু ভারতীয় মার্গ সঙ্গীতের তালিম বন্ধ হতে দেন নি তাঁর কাকা। স্বর্গীয় ওস্তাদ আমন আলী খাঁ সাহেব (Ustaad Aman Ali Khan) ও ওস্তাদ আব্দুল রহমান খাঁ (Ustaad Abdul Rehman Khan) সাহেবের কাছে পুরোদস্তুর তালিম চলেছিল তাঁর সেই সময়।

ভারতীয় মার্গ সঙ্গীতের (Indian Classical Music) এই সুদীর্ঘ তালিম যে তাঁর গায়কিকে আনায়াস ও সাবলীল করে রেখেছিল সেকথা তিনি সব সময়েই স্বীকার করে গেছেন। তাঁর সময়ে সমসাময়িক গায়ক গায়িকাদের মধ্যে একটা আলাদা জায়গা করে নিতে তাঁর খুব বেশীদিন সময় ও লাগেনি তার এই অনায়াস ও সাবলীল গায়কির জন্যে। তাঁর গানের একটা মজার ব্যাপার ছিল এই যে শুনলে গায়কদের বা সাধারন মানুষের সবারই মনে হত এত সহজ, এতো গেয়ে ফেলা যায়, কিন্তু সে ফাঁদে যে পরেছে সেই জেনেছে যে ভিতরে কি সুক্ষতা দিয়ে তিনি সুরের জাল বুনে গেছেন।

উনি সরলতাই শিল্পের অন্যতম শর্ত এই মতে বিশ্বাসী ছিলেন আজীবন তাই কী রেকর্ডিং এ কী মঞ্চে হাজার হাজার মানুষের সামনে, অতি বিনম্র ভাবে শুরু করতেন তিনি তাঁর গান,  সেই চিরাচরিত হাফ হাতা রঙ্গীন বুশ শার্ট আর গাঢ় রঙের ট্রাউজার্সে মাথায় থাকত টুপি। কিছুক্ষনের মধ্যে দর্শক বুঁদ হয়ে যেতেন সুরের মায়াজালে। নাহলে রেকর্ডিং  স্টুডিওতে তৈরী হত আরো একটি নতুন কোন অনবদ্য গান। স্টাইল স্টেটমেন্টে উনি এবং শ্রদ্ধেয় হেমন্ত মুখোপাধ্যায় এক অদ্ভুত বৈপরিত্য বজায় রাখতেন। ইনি রঙ্গিন আর উনি সাদা-কালো।

উনি ১৮ই ডিসেম্বর ১৯৫৩ তে সুলোচনা কুমারন (Sulochona Kumaran) এর সাথে বিবাহ সুত্রে আবদ্ধ হন, তাঁদের দুই মেয়ে সুরোমা ও সুমিতা জন্ম গ্রহণ করেন ১৯৫৬ ও ১৯৫৮ সালে। দীর্ঘ ৫০ বছরের মূম্বাই এর বাস ত্যাগ করে তিনি জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত ব্যাঙ্গালোর (Bangalore) বাসী রয়ে গেলেন। স্ত্রী সুলোচনা র মৃত্যু হয় ২০১২ ক্যান্সারে।

ওনার যে সাঙ্গিতিক যাত্রা শুরু হয় ১৯৪২ তা মোটামুটি জারি ছিল ১৯৯২ সাল অবধি, তাঁর পরে তিনি গানের অনুষ্ঠান,করেছেন রেকর্ড করেছেন তবে অনেক বাছাই করে। ভারতবর্ষে এবং বিদেশে অজস্র পুরস্কারের প্রাপক ছিলেন উনি। যেগুলি ওনাকে যতটা সম্মানিত করেছেন নিজেরা সম্মানিত হয়েছেন সমপরিমাণে। সর্বশেষ দাদা সাহেব ফালকে (Dada Saheb Phalke) পুরষ্কার। গান থাকবে শ্রোতারা থাকবে, শুধু হয়ত কোন এক অলস দুপুর মনে মনে গেয়ে উঠবে “মুকুটটা তো পড়েই আছে রাজাই শুধু নেই”।

Contributor: Sri Somankar Lahiri

Enhanced by Zemanta